মিউচুয়াল ফান্ডের সুবিধা | বাংলাদেশ থেকে বিনিয়োগ | Mutual Fund in Bangladesh

বাংলাদেশ থেকে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ ও মিউচুয়াল ফান্ডের সুবিধা সমূহ সম্পর্কে সচ্ছ ধারনাই আপনাকে এই সেক্টরে বিনিয়োগ করতে ইচ্ছা জাগাবে, তাই মিউচুয়াল ফান্ডের সুবিধা সম্পর্কে জানুন ও সঠিক সিদ্ধান্ত নিন।

আমরা অনেকেই আছি যারা সাধারণত মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে চাই। কিন্তু সঠিক নির্দেশনা বা নিয়মাবলি না জানার কারণে আমরা এখানে বিনিয়োগ করতে পারিনা। অনেকেই এই প্রশ্নটা করে থাকে যে মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ কেমন হবে এবং এর সুযোগ সুবিধা কেমন হবে।

মিউচুয়াল ফান্ড হচ্ছে মূলত এমন একটি সংস্থা আপনি এখানে টাকা বিনিয়োগ করলে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত সেই টাকা দেখে দিতে হয় এবং পরবর্তীতে আপনার বিনিয়োগকৃত টাকার পরিবর্তে তারা আপনাকে নির্দিষ্ট একটি অংশ লাভ হিসেবে দিয়ে থাকেন।

তাহলে আপনারা অবশ্যই বুঝতে পারছেন যে মিউচুয়াল ফান্ডে টাকা রাখা অবশ্যই লাভজনক। কিন্তু অনেকে আছে যারা মিউচুয়াল ফান্ডে কিভাবে বিনিয়োগ করতে হয় সেটা সম্পর্কে জানেন না যার ফলে তারা ঝুঁকির মধ্যে পড়ে থাকেন।

আজকে আমি আপনাদেরকে এই পোষ্টের মাধ্যমে বলব কিভাবে আপনারা বাংলাদেশ থেকে কিভাবে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করবেন এবং এবং মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ আমাদের বাংলাদেশ কেমন তাছাড়া এর সুবিধা অসুবিধা আরো অনেক দিক নিয়ে।

তবে অবশ্যই এর জন্য আপনাদেরকে আমাদের এই সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি অবশ্যই বিস্তারিত মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।তাহলে চলুন প্রথমেই জেনে নেয়া যাক বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ সম্পর্কেঃ

বাংলাদেশে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ 

মিউচুয়াল ফান্ডের কথা যখন আসেন তখন অনেকেই হয়তো ভাবে যে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে হলে আমাকে একজন ভারতীয় হতে হবে।

কিন্তু যারা এই ধারণাটা নিয়ে আসেন এখনও তাদের এ ধারণাটা সম্পূর্ণ ভুল।আপনারা চাইলে বাংলাদেশ থেকেই মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারেন এবং সেখান থেকে আপনারা লাভের টাকা পেতে পারেন।

শুধুমাত্র বাংলাদেশ থেকে নয় বিশ্বের যে কোন দেশ থেকে নির্দিষ্ট বুকার বা ব্যাংক শাখার মাধ্যমে সরাসরি যোগাযোগ করে আপনারা মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

বর্তমানে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগকারীর সংখ্যা দিন দিন অনেক বেড়ে চলেছে।কেননা মানুষ এখন বুঝতে পেরেছে যে মিউচুয়াল ফান্ডে তারা টাকা বিনিয়োগ করার মাধ্যমে আসলেই ভালো পরিমাণে লাভ করতে পারবেন সেই টাকার ভিত্তিতে।

তাছাড়া আপনারা যদি সঠিকভাবে বিনিয়োগ করতে পারেন মিউচুয়াল ফান্ডে তাহলে আপনাদের ঝুঁকির কোনো সম্ভাবনা নেই।

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকেও অনেকে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের জন্য আগ্রহী হয়েছেন এবং অনেকেই ইতিমধ্যে বিনিয়োগও শুরু করে দিয়েছেন।

যেহেতু মিউচুয়াল ফান্ডে আপনারা বিভিন্ন সময় মেয়াদী বিনিয়োগ করতে পারবেন এবং সেখান থেকে আপনারা বিনিয়োগ অর্জিত টাকার ওপর ভালো লাভ পাবেন।

সানডে যারা বিনিয়োগ করতে চান তারা কমবেশি অনেকেই এই সমস্যায় পড়ে থাকেন যে তারা কিভাবে সেখানে বিনিয়োগ করবেন।

সহজ কথায় বলতে গেলে যে তারা কোন পদ্ধতিতে বা কাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে বিনিয়োগ করবেন এটা সম্পর্কে অনেক কম জানেন।

আপনারা চাইলে বাংলাদেশে অনেক ব্যাংক রয়েছে যে সকল ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে মিউচুয়াল ফান্ডে কাস্টমাররা বিনিয়োগ করে থাকে। সেই ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে আপনি সরাসরি মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

আপনি যদি সঠিকভাবে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারেন তাহলে সেটা বাংলাদেশ বা ভারত যে স্থান থেকেই বিনিয়োগ করুন না কেন অবশ্যই আপনি এর থেকে সঠিক মুনাফা টা পাবেন।

তাই বাংলাদেশি নাগরিকরাও মিউচুয়াল ফান্ডের যেমন বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা ক্রমে পেয়ে থাকছেন তাই এর পরিপ্রেক্ষিতে বলা যেতেই পারে যে মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ খুবই ভালো।

আপনারা চাইলে কোন ধরনের ঝুঁকির ছাড়াই সঠিকভাবে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারেন এবং বিনিয়োগকৃত টাকার ওপর আপনারা সঠিক মুনাফা অর্জন করতে পারেন।

বাংলাদেশে মিউচুয়াল ফান্ডের সুবিধা

বাংলাদেশ থেকে আপনার মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ এর মাধ্যমে যে সকল সুবিধা পাবেন সে সকল সুবিধা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

কেননা আপনি যখন কোনো একটি ফান্ডে বিনিয়োগ করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে এর সুবিধাগুলো আগে জেনে নিতে হবে। মিউচুয়াল ফান্ড এর কয়েকটি সুবিধা হলোঃ

ঝুঁকি হ্রাস

সাধারনত অনেকে এই ধারণাটা এখনও নিয়ে আছে যে মিউচুয়াল ফান্ড ব্যাংকের মতো নিরাপদ না। যারা এই ধারণাগুলো নিয়ে থাকেন তাদের ধারণা সম্পূর্ণ ভুল কেননা একটি ফান্ড যখন কোন দেশের সরকার অনুমোদন দিয়ে থাকে তার জন্য পর্যাপ্ত বিধি নিষেধ সেদেশের সরকার দিয়ে থাকে।

তাই আপনারা যারা মনে করেন যে ব্যাংকের চেয়ে মিউচুয়াল ফান্ড নিরাপদ না তারা ভুল মনে করে থাকেন।তাই আপনারা সাইলেন্ট কোন ধরনের ঝুঁকির ছাড়াই মিউচুয়াল ফান্ডে টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন এবং আপনাদের অর্জিত টাকার ওপর লাভ করতে পারেন।

উন্নত পোর্টফোলিও ম্যানেজমেন্ট

যখন মূলত আপনি একটি মিউচাল ফান্ড কিনে থাকবেন তখন আপনি আপনার ব্যয়ের অনুপাতের অংশ হিসেবে একটি ম্যানেজমেন্ট ফি প্রদান করে থাকেন,যা সাধারণত একজন পেশাদার পোর্টফোলিও ম্যানেজার নিয়োগের জন্য ব্যবহূত হয়ে থাকে

এবং যিনি স্টক, বন্ড ইত্যাদি কেনেন এবং বিক্রি করে থাকেন। তাহলে অবশ্যই বুঝতে পারছেন যে একটি বিনিয়োগ পোর্টফলিও পরিচালনায় সহায়তা করে থাকে।

লভ্যাংশ পুনরায় বিনিয়োগ

সাধারণত এখানে যেহেতু ফান্ডের জন্য এবং অন্যান্য সুদের আয়ের এর উৎস দেওয়া হয়, তাই সেগুলো মিউচুয়াল ফান্ডের অতিরিক্ত শেয়ার করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। তাই সাধারণত এর মাধ্যমে আপনার বিনিয়োগও অনেক বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।

নিজের আর্থিক লক্ষ্য অনুযায়ী আপনারা এখানে বিনিয়োগ করতে পারবেন

আপনারাই এই ক্ষেত্রে যাই হয়ে থাকুক না কেন অবশ্যই আপনাকে বিনিয়োগের জন্য কিছু পরিমাণ অর্থ রেখে দেয়ার চেষ্টা করতে হবে।

মূলত আপনার আয় সময়ের দিগন্ত,বিনিয়োগের লক্ষ্য এবং ঝুঁকির ক্ষুধা মেলে এমন মিউচুয়াল ফান্ড মূলত খুঁজে পাওয়া অনেক সহজ।

বর্তমানে আপনি খুজলে খুব সহজেই এমন অনেক মিউচুয়াল ফান্ড পেয়ে যাবেন যার জীবনের সর্বস্থরের বিনিয়োগকারীদের সরবরাহ করে।

টাকাটা নির্দিষ্ট কাজে লাগাতে পারবেন

আপনারা মিউচুয়াল ফান্ডে যে টাকা বিনিয়োগ করবেন সেই টাকার বিপরীতে নির্দিষ্ট কিছু সময় বা নির্দিষ্ট কিছু বছর পর আপনারা সেই টাকার ওপর অর্জিত মুনাফা লাভ করতে পারবেন।

আপনারা যদি মিউচুয়াল ফান্ডে কিছু টাকা বিনিয়োগ করেন তাহলে অবশ্যই সেখান থেকে ভালো কিছু টাকা আপনাকে মিউচুয়াল ফান্ড লাভ দিবে আপনার বিনিয়োগের ওপর।

তাই আপনি চাইলে তখন ওই বিনিয়োগকৃত টাকা মিউচুয়াল ফান্ড থেকে তুলে সরাসরি কোন একটি নির্দিষ্ট কাজে লাগাতে পারবেন এবং সেখান থেকে আপনি ভালো কিছু করতে পারবেন।

তাহলে অবশ্যই বুঝতে পারছেন মিউচুয়াল ফান্ডে টাকা রাখার মাধ্যমে আপনারা এই দিক থেকেও বিভিন্ন ধরনের সুবিধা পাচ্ছেন।

তাছাড়া আপনারা মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের আরো অনেক সুবিধা পাবেন যা আপনারা সরাসরি মিউচুয়াল ফান্ড এর সাথে যুক্ত না থাকলে বুঝতে পারবেন না।

তাই অবশ্যই আমি একথা বলতে পারি যে বাংলাদেশের থেকে আপনাদের যদি মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাদের ভবিষ্যতের জন্য এটি খুবই ভালো হবে।

আর মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ আমাদের বাংলাদেশেও খুবই ভালো।কেননা বর্তমানে অনেকে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করার দিকে ঝুঁকছে।

 

আমাদের শেষ কথা

আশা করি আপনারা আজকের এই পোস্টটি পড়ার মাধ্যমে অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন যে বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ কেমন এবং এর সুযোগ সুবিধা সমূহ। আর আপনাদের যদি এই বিষয়ে কোন ধরনের প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন।

 

 

 

1 thought on “মিউচুয়াল ফান্ডের সুবিধা | বাংলাদেশ থেকে বিনিয়োগ | Mutual Fund in Bangladesh”

Leave a Comment