এফিলিয়েট মার্কেটিং কি | এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো 

বর্তমান সময়ে টাকা আয়ের অন্যতম সেরা অনলাইন প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে এফিলিয়েট মার্কেটিং। জিরো ইনভেস্টমেন্টে Affiliate Marketing শুরু করা থেকে পুর্নাঙ্গ গাইডলাইন রয়েছে এখানে। আপনার নিজস্ব ব্লগ আছে? ওয়েবসাইট অথবা কোনো ফেসবুক পেজ? যদি উত্তর হ্যা হয় আর সেটাতে ভাল রিচ থাকে, তাহলে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন।

Hello Awesome People’s I am Salim and you are in my blog named ” Salim Speaking ” today’s topic is Affiliate Marketing. Let’s see what’s in..

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

এটি একটি ঝামেলামুক্ত আয়ের প্রক্রিয়া,যেখানে নিজের কোনো মূলধন বিনিয়োগ করতে হয়না।অন্যের পণ্য বা প্রোডাক্ট কমিশনের ভিত্তিতে বিক্রি করে আয় করার মাধ্যমে এ কাজটি করা হয়।

উদাহরণস্বরুপ বলতে গেলে,আপনি একজনের পণ্য আপনার নিজস্ব ব্লগ অথবা পেজে অথবা ওয়েবসাইটে প্রচার করে বিক্রয় করলেন,এই বিক্রয়ের জন্য আপনি বিক্রিত টাকা থেকে কিছু টাকা কমিশন হিসেবে পেলেন, মূলত এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করার মাধ্যমে ভাল পরিমাণে অর্থ আয় করা সম্ভব। কিন্তু এজন্য আপনাকে এ ব্যাপারে পরিষ্কার জ্ঞান থাকা জরুরি। এফিলিয়েট মার্কেটিং করার বিভিন্ন বিষয় জানার পাশাপাশি এ কাজে সফল হওয়ার জন্য কিছু টিপস আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চাই। তো চলুন,কথা না বাড়িয়ে সেগুলো জেনে নিই।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে করবো?

কোনো ব্যক্তি অথবা কোম্পানির প্রোডাক্ট বা পণ্যের লিঙ্ক প্রমোট বা প্রচারের মাধ্যমে পণ্য বিক্রয় করা হলে, বিক্রয়ের টাকা থেকে যে কমিশন পাওয়া যায়, সেটাই হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং এর আয় করার পদ্ধতি।

এখন আপনাদের প্রশ্ন থাকতে পারে লিংক প্রমোশন কী?

বিভিন্ন এফিলিয়েট প্রোগ্রামে রেজিস্ট্রেশন করার পর যে প্রোডাক্ট নিয়ে এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন, সেটার একটা প্রচার লিংক থাকে। সেটাই হলো প্রমোট করার লিংক। আপনার যদি কোনো সোশ্যাল পেজ বা নিজস্ব কোনো ব্লগ বা ওয়েবসাইট থাকে, তাহলে সেখানে এ লিংকটি প্রচার করতে হয়।

এক্ষেত্রে অবশ্যই পণ্যটির ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য থাকা জরুরি। যেমন আপনি একটি মোবাইল ফোনের এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চাচ্ছেন, এখন শুধু বিক্রয়ের জন্য লিংক প্রমোট করলে মানুষ বুঝবে কি করে যে এটা কেমন? এজন্য সেই মোবাইলের ফিচার সম্পর্কে কিছু তথ্য ও ছবি থাকা জরুরি, যাতে মানুষ কেনার প্রতি আগ্রহী হয়। কেউ লিংকে প্রবেশ করে কিনলে আপনি কমিশন পাবেন।

এফিলিয়েট প্রোগ্রামে এ রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম

বর্তমানে বিশ্বের অনেক নামকরা কোম্পানি রয়েছে। তাদের ওয়েবসাইটে affiliate program চালু করেছে। আমাদের বাংলাদেশেও আছে যেমনঃ ওয়ান উম্মাহ্ বিডি, BDshop.com এখানে রেজিস্ট্রেশন করে বিভিন্ন পোশাক বিক্রির মাধ্যমে আয় করতে পারেন।

রেজিষ্ট্রেশন করা খুব সহজ। ব্যাসিক কিছু ইনফরমেশন যেমন আপনার ইমেইল, নাম্বার, ওয়েবসাইটের লিংক সহ যোগাযোগের কিছু মাধ্যম সম্পর্কে তথ্য চাইবে।

মোটামোটি সব গুলো সাইটের ক্ষেত্রে চাহিদা গুলো এক তবে কিছু স্থানে ভিন্নতা রয়েছে। আয় করা টাকা বিকাশ অথবা ব্যাংক একাউন্টে নেয়ার সুবিধা আছে।

এছাড়া বিদেশি সেরা কিছু সাইটে এফিলিয়েট প্রোগ্রাম শুর আছে। সেগুলোর নাম ও ব্যাসিক ধারনা দেয়া হলো :

Amazon affiliate program

বর্তমানে অ্যামাজন বিশ্বের শীর্ষের দিকে রয়েছে।তাদের সাইটে রেজিস্ট্রেশন করে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ভাল পরিমাণে টাকা আয় সম্ভব।

Flipcart affiliate program

এটি নামকরা ভারতীয় কোম্পানি।এদের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে ফ্রী তে রেজিস্ট্রেশন করে দামি কমদামি বিভিন্ন জিনিস বিক্রয়ের মাধ্যমে ভাল ইনকাম করা সম্ভব।তাই এখানে কাজ করতে পারেন।

Ebay affiliate program

আপনারা অনেকেই হয়তো নাম শুনেছেন এ কোম্পানির।Ebay হল একটি অনলাইন শপিং সাইট,যারা কিনা সারাবিশ্বে তাদের প্রোডাক্ট ডেলিভারি করে থাকে।আপনি এখানে এফিলিয়েট মার্কেটার হিসেবে জয়েন করে কাজ করতে পারেন।

Hostgator affiliate program

এরা ডোমেইন এবং হোস্টিং এর নামকরা কোম্পানি।আপনি যদি তাদের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে যুক্ত হয়ে একটা ডোমেইন অথবা হোস্টিং বিক্রী করেন,তাহলে প্রায় তিন হাজার টাকা পেতে পারেন মাত্র একটি বিক্রীতেই!যদি মাসে ১০টা বিক্রী করতে পারেন তাহলে প্রায় ৩০,০০০ টাকা আয় করা সম্ভব!

Go Daddy affiliate program

উচ্চ কমিশন পাওয়া যায় এখানে।তাই এখানে রেজিস্ট্রেশন করে কাজ করতে পারেন।Go daddy হলো domain এবং hosting এর জন্য বিখ্যাত। এছাড়া আরও অনেক সাইট আছে,যেখানে affiliate program আছে।ভাল সাইট খুজে পেতে গুগল সার্চ করতে পারেন।

সফল এফিলিয়েট মার্কেটার হতে করণীয়!

সফল এফিলিয়েট মার্কেটার হতে হলে আপনাকে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো সঠিক নিয়মে মার্কেটিং করা এবং ধৈর্য ধরে লেগে থাকা।

আপনি যদি ভাল পরিমাণ টাকা আয় করতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমে দেখতে হবে যে, আপনার ব্লগ, ওয়েবসাইট বা সোশ্যাল পেজে মানুষের সাড়া বা রিচ কেমন। এটা বাড়ানোর চেষ্টা করে তবেই সেখানে এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন।কেননা মানুষের আনাগোনা যত বেশি হয়, সেলটাও তত বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এছাড়া আপনাকে এসব কাজ করার সময় অধৈর্য লাগতে পারে, কিন্তু সফল হতে হলে আপনাকে কাজগুলো ধৈর্য ধরে ধীরস্থির ভাবে করে যেতে হবে। এছাড়াও আপনাকে চাহিদা আছে এমন প্রোডাক্ট গুলো বাছাই করতে হবে। কিছু চাহিদাসম্পন্ন প্রোডাক্ট হলোঃ

  • স্মার্টফোন বা মোবাইল ফোন
  • ডোমেইন এবং হোস্টিং
  • কাপড় বা জামা
  • ওয়ার্ডপ্রেস থিম
  • বই
  • ককসমেটিকস
  • জেন্ডস আইটেম
  • ইইলেক্ট্রনিক গ্যাজেটস
  • আয় করা ও টাকা তোলার উপায়

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয়কৃত টাকা তোলার জন্য আপনার প্রয়োজন একটি ব্যাংক একাউন্ট। এছাড়াও পেপাল (Paypal) অথবা পেওনিয়র একাউন্ট ক্ষেত্রবিশেষে প্রয়োজন পড়তে পারে। তবে কমপক্ষে একটি ব্যাংক একাউন্ট থাকা জরুরি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কত টাকা আয় করা যায়?

এটা নির্দিষ্ট করে বলা অসম্ভব। আপনাকে কাজ করতে হবে। যদি সঠিকভাবে সুশৃঙ্খলতার সাথে এবং পরিশ্রম করে কাজ করতে পারেন, তাহলে লক্ষাধিক টাকা আয় করা অসম্ভব নয়।

মনে রাখা দরকার যে,ভাল পরিমাণে অর্থ আয় করতে হলে ভাল পরিমাণে পরিশ্রম দেয়াটাও জরুরি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এ যা কখনোই করবেন না

যদি আপনি আপনা  কাজের ব্যাপারে সিরিয়াস থাকেন এবং সত্যিই সফল হতে চান, তাহলে কিছু কাজ আপনাকে বর্জন করে চলতে হবে। তার মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হলো যত্রতত্র মার্কেটিং করা এবং স্প্যামিং করা।

কখনোই যেখানে সেখানে মার্কেটিং করবেননা।  কারণ এতে মানুষ বিব্রকবোধ করে। এছাড়া অনেকে বিভিন্ন কমেন্ট বক্সে গিয়ে গনহারে এফিলিয়েট লিংক প্রমোট করে কমেন্ট করে থাকে যা স্প্যামিং। এতে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা হারানো লাগে। তাই এগুলো পরিহার করতে হবে।

পরিশেষে বলা যায় যে, এফিলিয়েট মার্কেটিং একটি সহজ মার্কেটিং সিস্টেম। এ মার্কেটের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো এ কাজ করার পূর্বে এক টাকাও বিনিয়োগ করার প্রয়োজন পড়ে না। ফলে বেকারদের কর্মসংস্থান হিসেবে এটি একটি দারুণ মাধ্যম। কোনো কর্মরত ব্যক্তি পার্ট টাইম হিসেবেও এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারে। তাই আপনি আজ থেকেই শুরু করে দিন। এফিলিয়েট মার্কেটিং হলো ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি ক্ষেত্র মাত্র। ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে আরো জানতে লিংক থেকে আর্টিকেলটি পড়তে পারেন।

2 thoughts on “এফিলিয়েট মার্কেটিং কি | এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো ”

Leave a Comment